আজ ঐতিহাসিক আরাফার দিন

0
234

মুহাম্মদ মহসিন আলী

আজ ঐতিহাসিক আরাফার দিন। গত বছরের ন্যায় এবছরও হজ্ব এর আয়োজন করা হয়েছে সীমিত আকারে। চলতি বছর যারা হজ্ব পালনে গিয়েছে তারা অনেক সৌভাগ্যবান। করোনা কালে অনলাইনে আবেদনের মাধ্যমে হজ্ব পালন কারীদের নির্বাচন করা হয়েছে। আগত হাজি সাহেবরা মক্কায় প্রবেশ করে তওয়াফে কুদুম দিয়ে শুরু করেছে হজ এর আনুষ্ঠানিকতা। তওয়াফ শেষ করে দিন ও রাত যাপন করার জন্য চলে গেলেন মিনায়, সেখান থেকে আজ ফযর নামাজের পর তালবিয়া পাঠ করে আরাফার ময়দানের উদ্দেশ্য রওয়ানা হবেন। আর এই আরাফার ময়দানে অবস্থানকালে বা এই দিনে হাজি সাহেবদের সাথে বিশ্বের সমস্ত মুসলমান কিছু নেক আমল করে থাকেন। 

আসুন, এই নেক আমলগুলো সম্পর্কে জেনে নিই এবং পালন করে মহান রব এর সন্তুষ্টি লাভে মনোযোগী হয়।

আজকের দিনে রোজা রাখা সুন্নত। যা আগামী ও গত এক বছর, মোট দু’বছরের ছোট গুনাহ থেকে আপনাকে পরিত্রাণ দেবে। চেষ্টা করে প্রতি ওয়াক্তের নামাজ জামাতের সাথে আদায় করতে হবে।

তাকবিরে তাশরিক যাঁরা আগামীকাল ঈদুল আজহা পালন করবেন, এ দিন থেকে ফরজ নামাজগুলোর পর নির্ধারিত তাকবির পাঠ করবেন তাঁরা। এটি পাঠ চলবে আগামী ১৩ জিলহজ পর্যন্ত।

তাকবিরটি নিম্নরূপ  আল্লাহু আকবর আল্লাহু আকবর লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবর আল্লাহু আকবর ওয়া লিল্লাহিল হামদ

(এখানে উল্লেখ্য, বাংলাদেশসহ মুসলিমবিশ্বের আরো কিছু দেশে যাঁরা আগামী ২১ সে জুলাই ঈদুল আজহা পালন করবে তাঁদের জন্য আগামীকাল ২০ সে জুলাই ফজরের নামাজের পর থেকে তাকবিরে তাশরিক পাঠের নিয়ম।)

ইশরাকের নামাজ সূর্যোদয়ের ১৫-২০ মিনিট পর ইশরাকের নামাজ আদায় করা উত্তম।

জিকির, তওবা, ইসতেগফার এ দিন সারাদিনই বেশি বেশি জিকির, তওবা ও ইসতেগফার পাঠ করা খুব ভালো।

দরুদ পাঠ ও কোরআন তেলাওয়াত বেশির থেকে বেশি দরুদ শরিফ পাঠ এবং কোরআন তেলাওয়াত করা খুবই ভালো।

আরাফাতের দিনের দোআ আরাফার দিনে হাজি সাহেগণ জোহর থেকে আসরের মধ্যে একটি বিশেষ দোআ পাঠ করে থাকেন। নেক আমলের অংশ হিসেবে সব মুসলমানই এটি পাঠ করতে পারেন। এই দোআটি প্রসঙ্গে মহানবী (সা.) বলেন, শ্রেষ্ঠ দো‘আ হচ্ছে আরাফাত দিবসের দোআ। দোআটি নিচে উল্লেখ করা হলো :

لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ وَحْدَهُ لاَ شَرِيكَ لَهُ، لَهُ الْمُلْكُ وَلَهُ الْحَمْدُ وَهُوَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ

[লা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু, লাহুল মূলকু ওয়া লাহুল হামদু, ওয়া হুয়া আলা কুল্লি শাইইন ক্বদীর]

একমাত্র আল্লাহ ছাড়া কোনো হক্ব-ইলাহ নেই, তাঁর কোনো শরিক নেই; রাজত্ব তাঁরই, সমস্ত প্রশংসাও তাঁর; আর তিনি সকল কিছুর ওপর ক্ষমতাবান।

লেখক, যুগ্ম আহ্বায়ক, বিজয়নগর উপজেলা প্রেস ক্লাব