উপজেলাবাসীর ন্যায্য দাবীর কাছে সিন্ডিকেট ঠিকতে পারবে না : এডঃ তানবীর ভূঞা

0
223

প্রশাসন উপজেলার সবার ন্যায্য দাবীর প্রেক্ষিতে ও নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মেনে একটি নির্দেশনা দিবে।খুব তাড়াতাড়ি তার প্রেক্ষিত নৌকা চলাচল শুরু হবে।উপজেলাবাসী কাছে সিন্ডিকেট ঠিকে থাকতে পারবে না। বিজয়নগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক বিজয়নগর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এডভোকেট তানবীর ভূঞা প্রধান অতিথির বক্তব্য এই কথা গুলো বলেন।

লইসকার বিলে নৌ-দূর্ঘটনায় ২৩ জন নিহতের কারনে প্রশাসনের নির্দেশে বন্ধ থাকা চম্পকনগর থেকে জেলা শহরের আনন্দবাজার নৌকাঘাট সিন্ডিকেট ভেঙ্গে “নৌকা যার ঘাট তার” শ্লোগান বাস্তবায়ন করে সরকারি নির্দেশনা মেনে নতুন করে নৌকা চলাচলের জন্য এক পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

১০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকাল ৪ টা বিজয়নগর উপজেলার পত্তন বন্দর বাজারে এই পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও পত্তনের সাবেক মেম্বার মোঃ জলফু মিয়ার সভাপতিত্বে ও বিশিষ্ট সর্দার মোঃ বাবুল মিয়ার পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন,চর ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ দুধ মিয়া।

বক্তব্য রাখেন বিজয়নগর উপজেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি পত্তনের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ তাজুল ইসলাম,চর ইসলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দানা মিয়া ভূঁইয়া, পত্তন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ শামসুল ইসলাম, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক জমির দস্তগীর, প্রফেসার আলী আজম,বিজয়নগর উপজেলা যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ নুর আলম সিদ্দিকী, পত্তন ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুল আলম,বিশিষ্ট সর্দার মোঃ খুরশিদ আলম,সাবেক মেম্বার আব্দুল করিম,আক্তার হোসেন,মেম্বার মোত্তালিব,মেম্বার সাদেকুর রহমান,সাবেক মেম্বার মুঞ্জুর আলী,আব্দুর রহমান সর্দার, দারু মিয়া সর্দার, আবুল কাশেম সর্দার,সাবেক মেম্বার মস্তু মিয়া,বজলুর রহমান প্রমুখ।

২৩ জন নিহতের রুহের মাগফিরাত কামনা ও আহতদের সুস্থতা কামনা করে নৌকা ঘাটের সিন্ডিকেট ভেঙ্গে, “নৌকা যার ঘাট তার” শ্লোগান কে বাস্তবায়ন করার জন্য সকল বক্তারা দাবী জানান।

উল্লেখ্য গত ২৭ আগস্ট চম্পকনগর থেকে ছেড়ে যাওয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া আনন্দবাজার যাত্রীবাহী নৌকা ডুবিতে ২৩ জন নিহতের পরে এত বড় নৌকাঘাট থেকে মাত্র ১৩ টি নৌকাকে নিয়ে এক সিন্ডিকেট প্রথা ভাঙ্গা ও শৃঙ্খলা রক্ষা করে নৌকা যার ঘাট তার বাস্তবায়নের দাবীতে এলাকাবাসী মাঝে দাবী উঠে।